web analytics
মিসির আলি সিরিজের দ্বিতীয় বই (দেবী দ্বিতীয় পর্ব)
সিরিজ
বিভাগ উপন্যাস
ভাষা
স্বত্ব
ডাউনলোড
নিশীথিনী, মিসির আলী সিরিজের দ্বিতীয় বই, দেবী উপন্যাসের দ্বিতীয় পর্ব।
নিশীথিনীর গল্প নতুন চরিত্র ফিরোজকে নিয়ে। সে ডাক্তারী পড়াশোনা করে। ময়মনসিংহের মোহনগঞ্জে তার বন্ধু আজমলের বাড়ী। ফিরোজ সেখানে ঘুরতে যায়। সেখানে গিয়ে সে এমন কিছু দেখে তাতে পুরোপুরি অস্বাভাবিক হয়ে যায়। তাকে ঢাকা নিয়ে আসা হয়। তারপর থেকেই হঠাৎ হঠাৎ সে হিংস্র হয়ে পড়ে। তার মাথায় খুন চেপে যায়। হিংস্র অবস্থায় তার কাছে একটি মানুষ আসে, তার সাথে কথা বলে। মিসির আলি ফিরোজের এ রহস্য উদ্ঘাটনের ভার নেন। ফিরোজ যার সাথে কথা বলে, মিসির আলির দেওয়া টেপ রেকর্ডারে তার আওয়াজও ধরা পড়ে। ফিরোজের সাথে কথা বলা এ অস্তিত্বটি হলো মোহনগঞ্জের ছোট চৌধুরী। তিনি হলেন আজমলের দাদার বাবা।
দেবী উপন্যাসের নীলুকে এই উপন্যাসেও দেখা যায়। তবে আশ্চর্যজনক তথ্য হলো, নীলুও রানুর মতো আচরণ করছে। তার মাঝেও অতিপ্রাকৃত ব্যাপারটা ভর করছে আর সেও ঠিক রানুর মতো বিভিন্ন অস্তিত্ব টের পায়। যে কোন বিপদের সময় সে আগে থেকেই সব জানতে পারে।
মিসির আলির বাড়ির কাজের মেয়ে হানিফা হঠাৎ রাতে ঘুমের ঘোরে ইংরেজি বলে উঠে। মিসির আলি বুঝতে পারেন। এ মেয়ে বেশ ভালো শিক্ষিত ঘরের। তখন তার মা বাবার খোঁজে তার কমিশনার বন্ধুর সাহায্য চান। সে সময় হঠাৎ করেই ঢাকা শহরের বিভিন্ন জায়গায় এক আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। তা হলো শুধু মাত্র প্যান্ট পড়া যুবক, তার হাতে রড এবং সে এই রড দিয়ে মানুষকে খুন করে বেড়ায়। রাজধানীতে যখন একের পর এক হত্যাকাণ্ড ঘটাতে থাকে, তখন নীলু হঠাৎ বুঝতে পারে এবার মিসির আলির পালা। সেই আততায়ী এবার মিসির আলিকে পাকড়াও করবে। নীলু যায় মিসির কাছে। প্রচণ্ড যুক্তিবাদী মিসির আলী কি কখনও এসব সমর্থন করবেন? তিনি কি পারবেন ফিরোজের ভেতরকার রহস্য, নীলুর রহস্য ভেদ করতে।
মিসির আলিরকে ঘিরে নীলু আর ফিরোজ। তাদের মধ্যকার দুই অস্তিত্ব দেবী আর ছোট চৌধুরী। যাদের অস্তিত্ব মিসির আলীর কাছে নেই, সত্যিই কি নেই?
দেবী থেকে অনেকগুন বেশি ভৌতিক লাগে নিশীথিনী। এখানে দুই চরিত্রের দুই অস্তিত্ব সত্যিই বেশ ভয় লাগে। লেখক বেশ সহজ সরল বর্ণনার মধ্যে দিয়ে ভৌতিক একটা আবহের সৃষ্টি করেছেন। যেখানে চোখ খুলে তাকাতেও পারছিলাম না, আবার অতি আগ্রহের ফলে বন্ধও রাখতে পারছিলাম না। পড়ার পরও ভয়ের চিত্র গুলো মাথা থেকে মুছে যায় না, বিশেষ করে ফিরোজের আচরণ। যতবার বইটার কথা মনে হয়। ততবার ওই চিত্র। আর ততবার চমকে যাই।
মিসির আলি এই ভয়ের রহস্য ভেদ করেছেন আরো বেশি চমৎকার ভাবে। আলো আঁধারিতে পড়ার জন্য অসম্ভব একটা বই। হুমায়ুন আহমেদের সৃষ্ট চরিত্র মিসির আলি বেশ রহস্যময়। দেবী উপন্যাসের মধ্যদিয়ে তার আগমন। লেখক এই চরিত্রটাকে গড়ে তুলেছেন লজিক দিয়ে। মিসির আলি সম্পর্কিত কাহিনীগুলো থাকে প্রচণ্ড যুক্তি নির্ভর। আর এই যুক্তি দিয়ে ভেদ করেন রহস্যের ভূতুরে দেয়াল। চারপাশের রহস্যময় কাহিনীগুলোকে বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা দিয়ে খুব সহজ ভাবে তুলে ধরেন। যেমনটা হয়েছে নিশীথিনীতে।
Read online or Download this book

© বাংলাদেশ কপিরাইট আইন, ২০০০ অনুসারে সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত

এই বইটির স্বত্বাধিকার লেখক বা লেখক নির্ধারিত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের, অর্থাৎ বইটি পাবলিক ডোমেইনের আওতাভূক্ত নয়৷ কেননা, যে সকল বইয়ের উৎস দেশ বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ কপিরাইট আইন, ২০০০ অনুসারে, লেখকের মৃত্যুর ষাট বছর পর স্বনামে ও জীবদ্দশায় প্রকাশিত অথবা বেনামে বা ছদ্মনামে ও মরণোত্তর প্রকাশিত রচনা বা গ্রন্থসমূহ প্রথম প্রকাশের ষাট বছর পর পঞ্জিকাবর্ষের সূচনা থেকে কপিরাইট মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়৷ অর্থাৎ, ১ জানুয়ারি, 2021 সাল হতে 1961 সালের পূর্বে প্রকাশিত (বা পূর্বে মৃত লেখকের) সকল রচনা পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত হবে। এবং 1961 সালের পরে প্রকাশিত বা মৃত লেখকের বইসমূহ পাবলিক ডোমেইনের আওতাভূক্ত হবে না৷

আইনি সতর্কতা

প্রকাশক এবং স্বত্বাধিকারীর লিখিত অনুমতি ছাড়া এই বইয়ের কোনও অংশেরই কোনওরূপ পুনরুৎপাদন বা প্রতিলিপি করা যাবে না, কোন যান্ত্রিক উপায়ের (গ্রাফিক, ইলেকট্রনিক বা অন্য কোনও মাধ্যম, যেমন ফটোকপি, টেপ বা পুনরুদ্ধারের সুযোগ সম্বলিত তথ্য-সঞ্চয় করে রাখার কোনও পদ্ধতি) মাধ্যমে প্রতিলিপি করা যাবে না বা কোন ডিস্ক, টেপ, পারফোরেটেড মিডিয়া বা কোনও তথ্য সংরক্ষণের যান্ত্রিক পদ্ধতিতে পুনরুৎপাদন করা যাবে না। এই শর্ত লঙ্ঘিত হলে উপযুক্ত আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে।
আপনার জন্য প্রস্তাবিত বইসমূহ
মন্তব্য করুন
Scroll Up
WhatsApp chat