web analytics
বাংলা সাহিত্যে অ্যাডভেঞ্চার নামক ঘরানার সৃজণ কার হাত ধরে হয়েছিল, তাই নিয়ে মতভেদ আছে। তবে যা নিয়ে কোন দ্বিমত নেই তা হল ওই ধারাটি পুষ্ট করার ক্ষেত্রে বিভূতিভুষণ বন্দোপাধ্যায়ের অবদান। যাঁর কলম ও মন পথের পাঁচালীর জন্ম দিয়েছে, সেই একই লেখক আমাদের উপহার দিয়েছেন অন্তত এমন দুটি অ্যাডভেঞ্চার যার যেকোনো একটি লিখতে পারলেই গর্বে সংশ্লিষ্ট লেখকের বুক দশ হাত হওয়ার কথা।
সেই দুটি উপন্যাস, অর্থাৎ চাঁদের পাহাড় আর হীরে মানিক জ্বলের মতো উঁচুদরের না হলেও এই বিশেষ উপন্যাসটি পাঠযোগ্যতার বিচারে সসমকালীন তো বটেই, এমনকি হাল আমলের বহু লেখার তুলনায় যোজনখানেক এগিয়ে।
বিভূতিবাবুর নাম দেখে অনেক আশা নিয়ে বসলে সেই আশা ততোধিক পূরণ নাও হতে পারে। খুবই সাদামাটা প্লট। গতানুগতিক একটা খুন দিয়ে গল্প শুরু।
অবশ্য বিভূতিবাবুর ক্ষেত্রে গতানুগতিক শব্দটা ব্যবহার করা অন্যায়। কারণ তাদের হাত ধরেই তো গতানুগতিকতার শুরু! খুনের তদন্তের ভার চাপে বিখ্যাত গোয়েন্দা মি. সোমের এক শিক্ষানবিশের ঘাড়ে। খুনের ঘটনাটা খুব একটা জটিল ছিল না। মাঝটায় এসে মোটামুটি অনুমান করে ফেলা যায় খুনি কে।
তবে লেখক সম্ভবত দেখাতে চেয়েছেন কিভাবে কত সামান্য আর অবহেলিত সূত্র ধরে রহস্যের সমাধান করে ফেলা যায়। গল্পের প্রেক্ষাপট (মিসমি) ব্যাপক হলেও লেখক সেটা কাজে লাগাননি বা লাগাতে পারেননি।
সর্বোপরি, শিক্ষনবিশের রহস্য সমাধানের ক্ষমতা দেখার পর এখন তার গুরুর কাহিনী জানতে ইচ্ছে করছে। এখনও পড়ে না থাকলে শিগগির পড়ে ফেলুন।
Read online or Download this book


যে সকল বইয়ের উৎস দেশ ভারত এবং ভারতীয় কপিরাইট আইন, ১৯৫৭ অনুসারে, লেখকের মৃত্যুর ষাট বছর পর স্বনামে ও জীবদ্দশায় প্রকাশিত অথবা বেনামে বা ছদ্মনামে ও মরণোত্তর প্রকাশিত রচনা বা গ্রন্থসমূহ প্রথম প্রকাশের ষাট বছর পর পঞ্জিকাবর্ষের সূচনা থেকে কপিরাইট মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়৷ অর্থাৎ, ১ জানুয়ারি 2020 সালে, 1960 সালের পূর্বে প্রকাশিত (বা পূর্বে মৃত লেখকের) সকল রচনা পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত হবে।
আপনার জন্য প্রস্তাবিত বইসমূহ
মন্তব্য করুন
Scroll Up
WhatsApp chat